Logo
বিজ্ঞপ্তি
DBC বাংলা News এর জেলা এবং উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে

স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে কারও উদ্যোগ ছিলনা মহাস্থান কুরবানির হাটে, করোনা বাড়ার শংকা

মাহফুজ মন্ডল, উত্তরাঞ্চল ব্যুরো প্রধান / ১১৪
বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক, ডিবিসি বাংলা নিউজ ডট কমঃ আগামী ২১ জুলাই বুধবার মুসলমানদের দ্বিতীয় প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। ঈদ উপলক্ষে সারা দেশে আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে গণপরিবহন, হাট বাজার, দোকান পাট, শপিংমলসহ প্রায় সব কিছুই খুলে দিয়েছে সরকার। আজ ১৪ জুলাই বুধবার উত্তরবঙ্গের সবচেয়ে বড় মহাস্থান গড় হাটবার।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমাতে দীর্ঘ প্রায় তিন সপ্তাহের কঠোর ও শিথিল লকডাউনের পর ঈদ উপলক্ষে আজকের হাটে দেখা গেছে ক্রেতা বিক্রেতাদের জনস্রোত। অনুকূল আবহাওয়া থাকায় বগুড়া ও আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখো জনতা এসেছেন মহাস্থান কুরবানির পশু হাটে। প্রচুর গরুর আমদানি হয়েছে, বিক্রয়ও হয়েছে ভালো।

তবে সবচেয়ে কষ্টের বিষয় হলো লাখো ক্রেতা বিক্রেতাদের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন আগ্রহই লক্ষ্য করা যায়নি। শহরের কিছু সচেতন ক্রেতাদের মুখে মাস্ক দেখা গেলেও পশু বিক্রেতাদের মুখে মাস্ক, কিংবা জীবানু নাশক ব্যবহার করতে দেখা যায়নি।

হাটে গরু কিনতে আসা শহরের বকশী বাজার এলাকার আলহাজ্ব আবদুর রহমান বলেন, হাট ইজারাদারের পক্ষ থেকে নাম মাত্র দু’চার জায়গায় একটি করে বোতলে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হলেও তা ছিল নিজেদের তৈরি, যা ব্যবহারে ভাইরাস মুক্ত সম্ভব নয়।

বিকেল ৬টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের কোন কর্তাব্যক্তিদের জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে তেমন কোন ভূমিকা লক্ষ্য করা যায়নি। হাট ইজারাদারের পক্ষ থেকে হাটের বেশ কয়েক জায়গায় হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল কিন্তু সেখানে পর্যাপ্ত পানি ও জীবাণু মুক্ত সাবান কিংবা হ্যান্ড ওয়াশ দেখা যায়নি।

হাটে ঢুকতে ও চালান পরিশোধের সময় ক্রেতাদের মাঝে কমপক্ষে এক মিটার দূরত্ব নিশ্চিত করার করার কথা থাকলেও কেউ মানেননি সে নির্দেশ। এমনকি একটি পশু থেকে আরেকটিকে রাখতে অন্তত ৫ ফুট দূরেসহ ১৬টি স্বাস্থ্য বিধি নিদের্শনা মেনে কোরবানীর পশু হাটে পশু ক্রয়-বিক্রয় করার নির্দেশনা থাকলেও ক্রেতা বিক্রেতাদের তা মানতে বাধ্য করেনি স্থানীয় প্রশাসন।

বগুড়া সদর উপজেলার লাহিড়ীপাড়ার আব্দুল বাছেদ বলেন, কুরবানীর পশুর হাট উপলক্ষে ক্রেতা ও বিক্রেতার নিকট থেকে প্রতিটি গরু ছাপিয়ে নেয়ার জন্য টোল আদায় করা হচ্ছ ১০০০ (এক হাজার) টাকা করে। আর প্রতিটি ছাগল ছাপানোর জন্য টোল নেয়া হচ্ছে ৬০০ (ছয়শত) টাকা। তাঁর মতো বেশ কয়েকজন ক্রেতা অভিযোগ করে বলেছেন কুরবানির পশু ক্রয়ের দোহাই দিয়ে সরকারী নিয়ম নীতি উপেক্ষা কটে টোল আদায় করা হচ্ছে।

ঢাকা থেকে আসা মজিবর রহমান নামে এক গরু ব্যবসায়ী বলেন, মহাস্থান হাটে এবার বিগত সময়ের চেয়ে বেশি গরু এবং ছাগল আমদানী হয়েছে। দামও ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে হওয়ায় বিক্রিও হয়েছে বেশি। তার মতে এবার প্রায় ৫০ হাজার গরু এবং ২০ হাজার ছাগল এসেছিল। আমদানীকৃত গরু ছাগলের প্রায় ৭৫ শতাংশ বিক্রি হয়েছে।

স্বাস্থ্যবিধি মানা না মানার বিষয়ে হাটুরেদের অভিযোগ অস্বীকার করে মহাস্থান হাট কমিটির ইজারাদার রাগেবুল আহসান রিপু বলেন, হাটে ৪০জন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করছে। ১৫টি হাত ধোয়ার জায়গা করা হয়েছে।
হাটে আগতদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য চারটি মাইক দ্বারা জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এরপর ক্রেতা-বিক্রেতাদের অনেকে স্বাথ্যবিধি মানছেন না।

মহামারী করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাব কমাতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার ব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে কুলসুম সম্পার নিদের্শনায় হাটে আগত ব্যক্তিদের তাপমাত্রা পরীক্ষা ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল কিন্তু ক্রেতা ও বিক্রেতারা কিছুই মানছেনা বলেও এই হাট ইজারাদার জানান। তিনি আরও জানান, স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনায় মহাস্থান হাটে কোরবানীর পশুর স্বাথ্য পরীক্ষার জন্য দুইজন ডাক্তার রাখা হয়েছে এবং সিসি ক্যমেরা দ্বারা হাট নিয়ন্ত্রন করা হচ্ছে। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং হাট কমিটির সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে সার্বক্ষনিক পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বলেন, স্বাস্থ্য বিধি মেনে হাট চালানোর জন্য ইজারাদারকে বলা হয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক, হাটে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি মানতে চায় না। তবুও চেষ্টা করা হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুরবানির পশু কেনা বেচার জন্য।

Print Friendly, PDF & Email


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও
Theme Created By ThemesDealer.Com